dse-cse

গত সপ্তাহের পাঁচ কার্যদিবসে (৫ থেকে ৯ আগস্ট) প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক কিছুটা বাড়ালেও অপর দুটি মূল্য সূচকের পতন ঘটেছে। ফলে সপ্তাহের ব্যবধানে দুই হাজার কোটি টাকার ওপরে বাজার মূলধন হারিয়েছে ডিএসই।

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৫৫৯ কোটি টাকা। যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৮২৬ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ২ হাজার ২৬৭ কোটি টাকা।
এদিকে গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ৭ দশমিক ২১ পয়েন্ট বা দশমিক ১৩ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ৯৪ দশমিক ৬২ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

অপর দুটি সূচকের মধ্যে গত সপ্তাহে ডিএসই-৩০ আগের সপ্তাহের তুলনায় ৫ দশমিক ৯০ পয়েন্ট বা দশমিক ৩১ শতাংশ কমেছে। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি ৮ দশমিক ৭৩ পয়েন্ট বা দশমিক ৪৬ শতাংশ বাড়ে।

আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১৬ দশমিক ২৪ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ২৯ শতাংশ কমেছে। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি বাড়ে ২ দশমিক ৩২ পয়েন্ট বা দশমিক ১৮ শতাংশ।

গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৪১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে ১০৩টির দাম আগের সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে। অপরদিকে দাম কমেছে ২১১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টির দাম।

এদিকে সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৬৮৭ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৬৮৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন বেড়েছে ১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা বা দশমিক ২৫ শতাংশ।

আর গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৩ হাজার ৪৩৭ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় ৩ হাজার ৪২৯ কোটি ১ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন বেড়েছে ৮ কোটি ৪২ লাখ টাকা।

গত সপ্তাহে মোট লেনদেনের ৮৭ দশমিক ৭৬ শতাংশই ছিল ‘এ’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের দখলে। এছাড়া বাকি ৫ দশমিক ১৯ শতাংশ ‘বি’ ক্যাটাগরিভুক্ত, ২ দশমিক ৫৯ শতাংশ ‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের এবং ৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ ‘জেড’ ক্যাটাগরিভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের।

সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে টাকার অঙ্কে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে বিবিএস ক্যাবলসের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৬৪ কোটি ৩৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের ৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা এবি ব্যাংকের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১১৯ কোটি ৭৯ লাখ টাকা, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের ৩ দশমিক ৪৯ শতাংশ। ১০৯ কোটি ২৫ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- সায়হাম টেক্সটাইল, সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিস, ড্রাগন সোয়েটার, লিগাসি ফুটওয়্যার, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, ফার কেমিক্যাল এবং মুন্নু সিরামিক।