media

এহছান খান:

দ্রুত সঠিক তথ্য দেওয়া এবং নির্ভুল থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কাজটি অনেকে সহজ ভাবলেও তা কিন্তু বেশ কঠিন।
ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে খবর দিতে গণমাধ্যম নির্ভর করে ঘটনাস্থলে থাকা তাদের প্রতিবেদকদের উপর। তবে প্রতিবেদকের পাঠানো খবর তখনই প্রকাশ হয়, যখন দায়িত্বপ্রাপ্ত সম্পাদক বা বার্তা সম্পাদক তাতে সন্তুষ্ট হন। বিশ্বাসযোগ্যতা, প্রাসঙ্গিকতা, স্পর্শকাতরতা বা এই খবর কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ফলকে উস্কে দেবে কি-না ইত্যাদিও বিবেচনা করতে হয়। এ রকম বিষয় উঠলে সেটা আরও উচ্চ পর্যায়ে চলে যায়। এই প্রক্রিয়া অতিক্রম করতে পারলেই সংবাদ আলোর মুখ দেখে।
যে কোনো ঘটনায়ই প্রতিবেদককে অনেক প্রশ্নের মাঝে দিয়ে যেতে হয়। তাতে উত্তীর্ণ হলেই কেবল সেটা প্রকাশ করা হয়। যত বড় ঘটনা, তত সিনিয়র সম্পাদকরা এই যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করেন।

তাৎক্ষণিক সংবাদ প্রকাশে ঘটনাস্থলে থাকা প্রতিবেদক ভুল খবর দিলে অবশ্য ঐ সংবাদ মাধ্যমটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যদিও প্রতিবেদকদের অনেক যাচাই-বাছাইয়ের পর নিয়োগ দেওয়া হয়।

অনেক সময় দেখা যায় সম্প্রচারকারী বা সংবাদ প্রকাশকারী একটি খবর প্রত্যাহার করে ফেলছে। ইন্টারনেটে সংবাদ প্রকাশকদের আরও বেশি সতর্ক থাকতে হয়। এখন রয়েছে আরএসএস ফিড, খুবই কার্যকরি সার্চ ইঞ্জিন, বিভিন্ন ধরনের অ্যালার্ট। তাই বিশেষ করে যদি কোনো খারাপ খবর হয়, তাহলে সেটা আরও দ্রুততর ছড়ায়। এমনকি ভুল বুঝতে পারার পর কেউ সাইট থেকে খবর নামিয়ে নিলেও সেটা এরই মধ্যে অন্য কেউ সেটা স্ক্রিনশর্ট নিয়ে ছড়িয়ে দেয়।
এহছান খান
বার্তা সম্পাদক 
দৈনিক অর্থনীতির কাগজ