eid

ঝিরিঝিরি বৃষ্টি সকাল থেকেই, আর সড়ক পথে যানজট তো নিত্যদিনের সঙ্গী। এর মধ্যে ভোর থেকেই কমলাপুরে বাড়ি ফেরা মানুষের উপচেপড়া ভিড়। ঈদে বাড়ি ফেরার ভোগান্তি এড়াতে গতকাল রোববার থেকেই ঢাকা ছাড়তে শুরু করেছেন। তবে পথের ভোগান্তি এড়াতে আগেভাগের এ যাত্রায় কোনোভাবেই এড়ানো যাচ্ছে না ঢাকার ভোগান্তি।
গত ২ জুনে যারা টিকিট সংগ্রহ করেছিলেন তারাই আজ (১১ জুন, সোমবার) কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে ঢাকা ছাড়ছেন। সকাল থেকেই ঘরমুখো হাজারও মানুষ নিয়ে কমলাপুর ছেড়ে যাচ্ছে ট্রেনগুলো। সব মিলিয়ে ঈদ যাত্রার দ্বিতীয় দিনেও রয়েছে ঘরমুখ মানুষের ভিড়। তবে আগামীকাল (মঙ্গলবার) থেকে ঘরে ফেরা মানুষের ভিড় আরও বাড়বে বলে ধারণা করছেন স্টেশন সংশ্লিষ্টরা।

স্টেশনের মাইক থেকে পুরুষ কণ্ঠে ভেসে আসছে ‘দিনাজপুর থেকে ছেড়ে আসা একতা এক্সপ্রেস আর অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই ৫ নম্বর প্লাটফর্মে এসে দাঁড়াবে।’ যারা প্ল্যাটফর্মের পাশে বসে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন এমন ঘোষণা শোনার পর লাগেজ নিয়ে তারা এগিয়ে যেতে থাকেন। তাদের মধ্যে একজন সিরাজুল ইসলাম, স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে ঈদ উদযাপনে দিনাজপুরে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, রাস্তায় অতিরিক্ত যানজট-খানাখন্দ, যে কারণে ট্রেনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত। এছাড়া ঈদের আগের দুইদিন অতিরিক্ত যাত্রী চাপ থাকবে, সে কারণেই আজ যাওয়া।

তিনি আরও বলেন, টিকিট পাওয়ার জন্য দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়েছে কাউন্টারের লাইনে। আর যাত্রা পথে ট্রেনের ভেতরে থাকে অতিরিক্ত যাত্রী চাপ। এমন পরিস্থিতি হয় যেন টিকিট থাকা সত্ত্বেও আসনে পৌঁছানো যায় না। এমন পদে পদে ভোগান্তি, তবুও সবাই ঈদে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরে যায়। তবে বাড়ি ফেরা হলে যেন এসব ভোগান্তির কথা কিছুই মনে থাকে না। এই বাড়ি ফেরাতেই যেন আনন্দ।

সকাল ৯টা ৪০ মিটিটে ৫ নম্বর প্লাটফর্মে এসে দাঁড়ায় একতা এক্সপ্রেস ট্রেনটি। দাঁড়ানো মাত্রই দ্রুত ট্রেনে উঠতে শুরু করেন যাত্রীরা। এমন এক প্রতিযোগীতা শুরু হয় যেন কার আগে কে ট্রেনে উঠতে পারেন।
অন্যদিকে ৪ নম্বর প্লাটফর্মে তখনও অপেক্ষা করছিল জামালপুরগামী অগ্নিবীনা ট্রেন। আসনগুলো পরিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েও ছিলেন অনেক যাত্রী। তাদের মধ্যে একজন রাজিয়া সুলতানা। জাগো নিউজকে তিনি বলেন, সন্তানদের নিয়ে গ্রামে ঈদ করতে যাচ্ছি। আমরা যারা বাহিরে থাকি (ঢাকা) তাদের কাছে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরার থেকেই যেন ঈদের আনন্দ শুরু হয়ে যায়।
এদিকে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, কমলাপুর স্টেশন থেকে আজ দেশের বিভিন্ন স্থানে মোট ৬৩টি ট্রেন ছেড়ে যাবে।

কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী ঈদ যাত্রা বিষয়ে বলেন, সব ট্রেন সময়মতই ছেড়ে যাচ্ছে। যাত্রীর চাপ মোকাবেলায় প্রায় ট্রেনেই অতিরিক্ত বগি লাগানো হয়েছে। এছাড়া বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা রয়েছে।

একই সঙ্গে যাত্রীরা যেন নিজেদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে ট্রেনের ছাদে যাত্রা না করেন সে বিষয়ে অনুরোধ করেন তিনি।