anisul

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলার এক আসামির সঙ্গে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজের গোপন বৈঠকের অভিযোগের বিষয়ে চলতি মাসেই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

রোববার সচিবালয়ে অধস্তন আদালতের বিচারকদের ব্যবহারের জন্য প্রাইভেটকার এবং মাইক্রোবাস হস্তান্তর অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান।
তুরিন আফরোজের গোপন বৈঠক সংক্রান্ত অভিযোগের তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগটি এসেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এটা একটা অতিগুরুত্বপূর্ণ অভিযোগ। তিনি যে পদে আছেন সেটাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদ। এখানে তার ব্যাপারে আবেগ নির্ভর কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে না। তবে এসব সিদ্ধান্ত একটু তাড়াতাড়ি নেয়াই ভালো। সেক্ষেত্রে রিজনেবল টাইম অর্থাৎ এ মাসের মধ্যেই তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে।’

সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) এবং পাসপোর্ট অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) মুহাম্মদ ওয়াহিদুল হককে গত ২৪ এপ্রিল গ্রেফতার করা হয়। পরদিন ট্রাইব্যুনাল তাকে কারাগারে পাঠান।

মামলাটি পরিচালনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজকে। তিনি ওয়াহিদুল হককে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে সাক্ষাৎ করতে চান। তাকে যে কোনো দিন আটক করা হতে পারে বলেও তিনি কথোপকথনকালে জানান। প্রথমে ওয়াহিদুল হকের গুলশানের বাসায় তাদের সাক্ষাৎ হবে। পরবর্তী সময়ে সাক্ষাতের স্থান পরিবর্তন হয়। তারা গুলশানে অলিভ গার্ডেন নামের একটি রেস্টুরেন্টে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় তারা প্রায় তিন ঘণ্টা মামলার নথিপত্র নিয়ে আলোচনা করেন।

এ সময় ওয়াহিদুল হকের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ এবং তাকে গ্রেফতারের আদেশের অনুলিপি নিয়েও আলোচনা হয় বলে জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমানে কানাডায় রয়েছেন। সেখানে থাকা বঙ্গবন্ধুর খুনি নূর চৌধুরী ব্যাপারে আলোচনা হবে কিনা- জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কানাডা গেছেন, আমি যতদূর জানি সেখানে নূর চৌধুরীর ব্যাপারে আলোচনা হবে।’