mbappe

মাত্র ১৯ বছর বয়সেই পেয়ে গেছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়ের তকমা। মোনাকো থেকে পিএসজিতে এসে ইতোমধ্যেই দলের অন্যতম প্রধান খেলোয়াড়ে পরিণত হয়েছেন। এবার রাশিয়া বিশ্বকাপেও নিজ দেশ ফ্রান্সের হয়ে খেলার সুযোগ করে নিয়েছেন কেইলান এমবাপ্পে। এত অল্প বয়সে বিশ্বকাপ খেলতে পারাটা যেকোন ফুটবলারের জন্যেই একট স্বপ্ন। ব্যতিক্রম নন এমবাপ্পেও।

পিএসজির হয়ে ঘরোয়া লীগ এবং কাপ জেতার পর বুধবারই দলের সঙ্গে অনুশীলনে যোগ দিবেন এমবাপ্পে। ছোটবেলায় থেকেই বিশ্বকাপের স্বপ্ন দেখা এমবাপ্পে বলেন, ‘আমি সব সময় স্বপ্ন দেখেছি বিশ্বকাপ খেলার। অন্যান্য বাচ্চাদের মত আমিও ছোটবেলায় টিভিতে বিশ্বকাপ দেখেছি। আমি তাদের দেখে নিজেকে বলতাম, যদি আমি তাদের দলের একজন হয়ে মাঠে খেলতে পারতাম। এখন এটি বাস্তবে রূপান্তরিত হয়েছে আমি কঠোর পরিশ্রম করে দলকে যতটা সম্ভব সাহায্য করতে চাই।’
পিএসজি থেকে কেম্বেম্পে এবং আরিওলা জায়গা করে নিওয়েছেন দিদিয়ের দেশমের ফ্রান্স দলে। বিশ্বকাপে নিজের লক্ষ্য সম্পর্কে এমবাপ্পে বলেন, ‘বিশ্বকাপে যতদূর যাওয়া যায়। প্রথমে দলের হয়ে খেলাটা জরুরি। বিশ্বকাপ এমন এক ট্রফি যাকে আপনার দলগতভাবে জিততে হবে, একটি দেশ হিসেবে। কেইলান একা বিশ্বকাপ জেতাতে পারবে না।’