football

পান্নালাল চ্যাটার্জির বয়স ৮৪ বছর, তার স্ত্রী চৈতালি চ্যাটার্জির ৭৬। কলকাতার খিদিরপুরের এ বৃদ্ধ দম্পতির ফুটবলপ্রেমের গল্পটা পুরোনো। ফুটবলের প্রতি অফুরন্ত ভালোবাসার কারণে গত অক্টোবরে ভারতে ফিফা অনুর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের সময় তাদের বিশেষ সম্মান দিয়েছিল বিশ্ব ফুটবলের অভিভাবক সংস্থাটি।

যুব ভারতীয় স্টেডিয়ামের সব ম্যাচের টিকিট তাদের দিয়েছিল ফিফা। শুধু তাই নয়, বয়স বিবেচনায় ফিফা তাদের সঙ্গে একজন ডাক্তার রাখতে বাড়তি একটি টিকিটও দিয়েছিল। বয়স্ক এ দম্পতি এখন বিশ্বকাপ দেখতে রাশিয়া যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে।
২০১৪ সালে ব্রাজিল গিয়ে খেলা দেখে এসেছেন তারা। তার আগে দেখেছেন আরো ৮ বিশ্বকাপের খেলা। ১৯৮২ সাল থেকে পান্নালাল ও চৈতালি বিশ্বকাপের কোনো খেলা মিস করেননি। রাশিয়া যাওয়া হলে এটি হবে আলোচিত এ দম্পতির দেখা দশম বিশ্বকাপ। আগে টানা ৯ বিশ্বকাপ দেখার জন্যই ফিফা তাদের বিশেষ সম্মান দিয়েছিল তাদেরই আঙ্গিনায় হওয়া যুব বিশ্বকাপের সময়।

panna

কলকাতার বিখ্যাত এ ফুটবল দম্পতি রাশিয়া বিশ্বকাপ দেখতে যাবেন, এটা কিন্তু ভাবেননি ব্রাজিল বিশ্বকাপের সময়। ‘ব্রাজিল বিশ্বকাপের সময় মনে হয়েছিল এটাই বুঝি ফুটবলের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট আমার জীবনে। কিন্তু সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদ ও সবার ভালোবাসায় আরেকটি বিশ্বকাপের টিকিট হাতে এসেছে। ১৪ জুন আমরা রাশিয়া রওয়ানা হবো’-বলেছেন ৮৪ বছরের পান্নালাল চ্যাটার্জি।

১৯৮২ সালের স্পেনে হওয়া বিশ্বকাপ দিয়ে তাদের খেলা দেখা শুরু। তার ১৯৮৬ সালে মেক্সিকো, ১৯৯০ সালে ইতালি, ১৯৯৪ সালে যুক্তরাষ্ট্র, ১৯৯৮ সালে ফ্রান্স, ২০০২ সালে জাপান-কোরিয়া, ২০০৬ সালে জার্মানি, ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপের সবকটিই গ্যালারিতে বসে দেখেছেন তারা।

নিজেদের দেখা ৯ বিশ্বকাপে দুটি উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ঘটনা উল্লেখ করেন পান্নালাল। বলছিলেন, ‘১৯৮৬ সালে ম্যারাডোনার হাতে ট্রফি দেখা এবং ২০১৪ সালে জার্মানির কাছে ব্রাজিলের ৭-১ গোলের হার আমার দেখা উল্লেখযোগ্য ঘটনা।’ রাশিয়া বিশ্বকাপে তিনি দেখতে চান ম্যারাডোনার উত্তরসূরী মেসির হাতে সোনালী ট্রফি।