murder

যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলায় সৎ মাকে হত্যা করে এক যুবক থানায় আত্মসমর্পণ করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

রোববার রাত ৮টার দিকে ঝিকরগাছা পৌর এলাকার কীর্তপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ঝিকরগাছা থানার ওসি আবু সালেহ মাসুদ করিম বলেন, রোববার মোটর শ্রমিক আবু হুরায়রা মিম (১৮) ঢাকা থেকে বাড়ি আসেন। পারিবারিক কলহের জেরে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মিম কুড়াল দিয়ে তার সৎ মা আনোয়ারা বেগমকে কুপিয়ে জখম করেন।

“প্রতিবেশীরা মুমূর্ষু অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রাশেদুল আলম তাকে মৃত ঘোষণা করেন।”

চিকিৎসক বলেন, হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়েছে আনোয়ারা বেগমের। তার মাথা ও কপালসহ শরীরের চারটি স্থানে গভীর ক্ষত রয়েছে।

ওসি মাসুদ জানান, ঘটনার ঘণ্টা দেড়েক পর রাত সাড়ে ৯টার দিকে আবু হুরায়রা মিম নিজেই থানায় এসে নিজের সৎ মাকে হত্যার কথা জানিয়ে আত্মসমর্পণ করেছে।

“সে জানায়, অত্যাচার নির্যাতনের কারণে সে তার সৎ মাকে খুন করেছে।”

আবু হুরায়রার বরাত দিয়ে ওসি জানান, সাত বছর আগে তার বাবা মশিয়ার রহমান তার মা মেরিনা আক্তার লিপিকে ছেড়ে আনোয়ারা বেগমকে বিয়ে করেন। এরপর থেকে তারা দুই ভাই সৎ মায়ের নির্যাতনের শিকার ছিলেন।

থানায় উপস্থিত সাংবাদিকদের মিম বলেন, ছোট ভাই যাতে মানুষ হতে পারে সে ব্যবস্থা করে গেলাম।

ছোট ভাই মুশফিকুর রহমান ঝিকরগাছা বিএম হাই স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্র। তিনিও ভাইয়ের থানায় আত্মসমর্পণের খবরে সেখানে আসেন।

মিমদের প্রতিবেশী আবু মোতালেব বলেন, এই দুই ভাই দীর্ঘদিন ধরে সৎ মায়ের অত্যাচারে অতীষ্ঠ। এ নিয়ে এলাকার মানুষেরা তাদের তাদের বাবা মশিয়ার রহমানকে একাধিকবার বলেছেন। স্থানীয়ভাবে শালিসও হয়েছে।