opu-shakib

২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল বিয়ে করেন শাকিব-অপু। কিন্তু ৯ বছর বিয়ের খবর গোপন রাখেন তারা। অবশেষে গত বছরের ১০ এপ্রিল একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে ছয় মাস বয়সী ছেলে আব্রামকে সঙ্গে নিয়ে হাজির হন অপু।

এরপর বিগত বছরের ২২ নভেম্বর অপু বিশ্বাসকে তালাক নোটিশ দিয়েছিলেন শাকিব খান।

আর সবশেষ সোমবার (১২ মার্চ) শাকিব-অপুর চূড়ান্ত বিচ্ছেদ ঘটছে। এদিন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) শাকিব-অপুর তৃতীয় ও শেষ শুনানি হবে। এর আগের দুটি শুনানিতে শাকিব আসেননি। অপু প্রথম শুনানিতে এলেও দ্বিতীয়টাতে আসেননি। সমঝোতার কোনো সুযোগ নেই দেখে তিনিও বিচ্ছেদ মেনে নেন।

২২ ফেব্রুয়ারি শাকিবের বিবাহ বিচ্ছেদের চিঠি পাঠানোর তিন মাস পূর্ণ হলেও শাকিব-অপুর বিবাহ বিচ্ছেদ কার্যকর হয়নি বলে জানান ঢাকা সিটি করপোরেশনের (অঞ্চল-৩) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত হোসেন।

ওই প্রসঙ্গে হেমায়েত হোসেন বলেন, শাকিব খান যেদিন স্বাক্ষর করেছিলেন, সেদিন থেকে তিন মাস পর কার্যকর হবে ব্যাপারটা এমন নয়। আমরা সিটি করপোরেশন তাদের তিন মাসে তিনবার ডাকব, সেই তৃতীয়বার বিষয়টির ফয়সালা হবে।

তিনি আরো বলেন, আগামী ১২ মার্চ তৃতীয় ও শেষবারের জন্য তাদের আবারও ডাকা হয়েছে। এদিন যদি তারা না উপস্থিত হন, তাহলে বিবাহ বিচ্ছেদ কার্যকর হয়ে যাবে।