us

ইউএস-বাংলা গ্রুপের অন্যতম সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইউএস-বাংলা এসেটস ‘রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ার-২০১৮’ এ অংশ নিতে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) থেকে , চট্টগ্রামে হোটেল রেডিসন ব্লুতে শুরু হচ্ছে এ মেলা। চলবে ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এ মেলার অন্যতম কো-স্পন্সর হয়েছে ইউএস-বাংলা এসেটস।

বুধবার ইউএস-বাংলা গ্রুপের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য মেলা উন্মুক্ত থাকবে। মেলায় ইউএস-বাংলা এসেটস-এর স্টল নং হলো কো-স্পন্সর-২। এতে ইউএস-বাংলা এসেটস-এর প্রধান আকর্ষণ পূর্বাচল আমেরিকান সিটি প্রকল্প। রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ারে পূর্বাচল আমেরিকান সিটি প্রকল্প সম্পর্কে যে কোনো তথ্যের জন্য যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে – ০১৭০৮ ৮১৩২৪০, ০১৭০৮ ৮১৩২৪৪ নম্বরে।
ইউএস-বাংলা এসেটস-এর পক্ষ থেকে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স লিমিটেডের জিএম (মার্কেটিং সাপোর্ট অ্যান্ড পিআর) মো. কামরুল ইসলাম জানান, সম্প্রতি বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা শহরসহ রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন অঞ্চল, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া এবং ওমানে আয়োজিত পূর্বাচল আমেরিকান সিটির একক আবাসন মেলায় দর্শকদের আশানুরূপ সাড়া মিলে। তারই ধারাবাহিকতায় রিহ্যাব আয়োজিত রিহ্যাব চট্টগ্রাম ফেয়ারে পূর্বাচল আমেরিকান সিটি প্রকল্পে প্লট ক্রয়ের জন্য নানাবিধ সুবিধাদি নিয়ে উপস্থিত হওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে ইউএস-বাংলা এসেটস।

তিনি বলেন, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে মাত্র ১৫ মিনিটের দূরত্বে অবস্থিত পূর্বাচল আমেরিকান সিটি। এককালীন মূল্য পরিশোধে ২৫ শতাংশ ছাড় এবং সঙ্গে সঙ্গেই রেজিস্ট্রেশন ও হস্তান্তরের সুযোগ থাকছে।

আকর্ষণ হিসেবে যা থাকছে

আকর্ষণ হিসেবে থাকছে প্লট বুকিং দিয়ে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সে সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর, ব্যাংককে রিটার্ন টিকিটসহ দুই রাত তিন দিন থাকার সুবর্ণ সুযোগ।

কামরুল ইসলাম জানান, বর্তমানে পূর্বাচল আমেরিকান সিটির বিভিন্ন ব্লকে মেলা উপলক্ষে কাঠাপ্রতি মাসিক কিস্তি সর্বনিম্ন ৭ হাজার ৪১৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। মেলা উপলক্ষে বাউন্ডারি ওয়ালসহ আবাসিক/কমার্শিয়াল/হাসপাতাল/ ইন্সটিটিউশন/শপিং কমপ্লেক্স/কনভেনশন সেন্টার/ ব্যাংক/ কর্পোরেট অফিসের জন্য রেডি প্লট এককালীন মূল্য/ কিস্তিতে বিক্রয় চলছে।

উল্লেখ্য, ইউএস-বাংলা গ্রুপের প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে- ইউএস-বাংলা এসেটস, গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ইউএস-বাংলা মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হসপিটাল, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স, ইউএস-বাংলা লেদার, ইউএস-বাংলা ফ্যাশন, ইউএসবি এক্সপ্রেস, ইউএস-বাংলা ফুড, ইউএস-বাংলা হাই-টেক, ইউএস-বাংলা মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশনস এবং ইউএস-বাংলা এগ্রোসহ আরো নানাবিধ প্রতিষ্ঠান।

পূর্বাচল আমেরিকান সিটি প্রকল্পে গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের স্থায়ী ক্যাম্পাসের অবকাঠামোগত উন্নয়ন প্রক্রিয়া চলছে। খুব শিগগিরই ইউএস-বাংলা মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হসপিটালেরও পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাসের কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। পূর্বাচল আমেরিকান সিটির যে কোনো তথ্যের জন্য ইউএস-বাংলা এসেটস-এর কর্পোরেট অফিস-৭৭ সোহরাওয়ার্দী এভিনিউ, বারিধারা, ঢাকায় যোগাযোগ করার জন্য গ্রুপটির পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।