piaz

পেঁয়াজের ন্যূনতম রফতানি মূল্য (এমইপি) তুলে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এর ফলে আগামীতে বাংলাদেশের বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম আরও কমে আসবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ভারতের বাজারে নতুন পেঁয়াজ ওঠতে শুরু করেছে। এর জের ধরে সরবরাহ দেশটিতে আগের তুলনায় পণ্যটির দাম কমে এসেছে। এ পরিস্থিতিতে রফতানিকে উৎসাহিত করতে পেঁয়াজের ন্যূনতম রফতানি মূল্য (এমইপি) তুলে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।
গত মৌসুমে অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে ভারতে পেঁয়াজ উৎপাদন মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়। দেশটির বাজারে পেঁয়াজের দাম কয়েক গুণ বেড়ে যায়। ফলে রফতানি কমিয়ে অভ্যন্তরীণ বাজারে দাম ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে রাখতে প্রতি টন পেঁয়াজের এমইপি ৫৪ হাজার রুপি বা ৮৫০ ডলার নির্ধারণ করে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার।

তবে চলতি বছরের শুরুতে পেঁয়াজের এমইপি টনপ্রতি ১৫০ ডলার কমানোর ঘোষণা দেয়া হয়। এরপর দেশটির কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কৃষিপণ্যের রফতানি আরও বাড়ানোর লক্ষ্যে পেঁয়াজের এমইপি কমানো হলো।

ভারতের কেন্দ্রীয় শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী সুরেশ প্রভু এক বিষয়ে টুইটার বার্তায় বলেছেন, ‘কৃষিপণ্যের রফতানি বাড়ানোর লক্ষ্যে সম্ভাব্য সব ধরনের পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত রয়েছে ভারত সরকার।’