razer-project-linda

যতো দিন যাচ্ছে ততোই ক্ষমতাধর প্রসেসর ব্যবহার করা হচ্ছে মোবাইল ফোনে। আর এবার যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাসে শুরু হওয়া সিইএস ২০১৮-তে দেখানো হলো এমন ল্যাপটপ যা স্মার্টফোন দিয়েই চালানো যাবে।

ভোক্তা ইলেকট্রনিকস পণ্য প্রদর্শনী অনুষ্ঠান সিইএস-এ বরাবরই চমক দেখানো কোনো ধারণা প্রদর্শন করে গেইমিং ও কম্পিউটার পণ্য নির্মাতা সিঙ্গাপুরভিত্তিক প্রতিষ্ঠান রেজার। এবারের আসরে প্রতিষ্ঠানটির প্রদর্শন করা প্রকল্পের নাম ‘প্রজেক্ট লিন্ডা’। এই নামের বিশেষ অর্থ আছে বলে জানালেও, অর্থটা আসলে কী তা বলেনি প্রতিষ্ঠানটি, খবর প্রযুক্তি সাইট সিনেট-এর।

প্রজেক্ট লিন্ডা হচ্ছে একটি ১৩ ইঞ্চি ল্যাপটপ, এটি দেখতে রেজার ব্লেইড স্টেলথ ল্যাপটপের মতোই। পার্থক্য হচ্ছে এটি প্রচলিত কোনো প্রসেসরচালিত কম্পিউটার নয়, বরং এটি চলবে প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব রেজার স্মার্টফোন-এর সহায়তায়। এই অ্যান্ড্রয়েড ফোনে রয়েছে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ সিপিইউ।

     

স্মার্টফোন আর ল্যাপটপ-কে একত্র করে দুটির নকশার মধ্যে থাকা পার্থক্যকে সরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে এই প্রকল্পে। ল্যাপটপের যেখানে টাচপ্যাড থাকে এই সেই জায়গাটা খালি রাখা হয়েছে, জায়গাটা একটি রেজার ফোন রাখতে ঠিক যতটুকু জায়গা দরকার তার সমান।
টাচপ্যাড-এর এই জায়গাতে রেজার ফোন বসানোর পর স্মার্টফোনটির ডিসপ্লেকে ব্যবহার করা যাবে টাচপ্যাড হিসেবে। কেউ চাইলে একে দ্বিতীয় স্ক্রিন হিসেবেও ব্যবহার করতে পারবেন, একসঙ্গে দুটি অপশন ব্যবহারেরও সুযোগও রাখা হয়েছে।

রেজার সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মিন-লিয়াং ট্যান বলেন, “প্রজেক্ট লিন্ডা দুইটি জগতকে একসঙ্গে এনেছে। বড় পর্দা আর ফিজিল্যাল কিবোর্ড-কে অ্যান্ড্রয়েড পরিবেশে নিয়ে আসার মাধ্যমে এটি গেইমিং ও কার্যক্ষমতা উন্নত করে।”

ল্যাপটপটিতে রয়েছে পূর্ণ আকৃতির একটি রেজার ক্রোমা কিবোর্ড। অ্যালুমিনিয়াম বডির এই ল্যাপটপের ভর তিন পাউন্ডের কম হবে বলে জানিয়েছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। এতে রয়েছে ১৩.৩ ইঞ্চি কোয়াড-এইচডি ডিসপ্লে।

      

প্রসেসর থেকে র‍্যাম আর র‍্যাম থেকে অপারেটিং সিস্টেম- পুরো প্রক্রিয়াই স্মার্টফোনটি চালালেও, এতে কিছু আনুষঙ্গিকও যোগ করা হয়েছে। এতে রয়েছে ৫৩.৬ডাব্লিউএইচ ব্যাটারি, ২০০জিবি বাড়তি এক্সটারনাল স্টোরেজ, ৭২০ পিক্সেল ওয়েবক্যাম, অডিওজ্যাক, ইউএসবি-এ আর ইউএসবি-সি পোর্ট।
ফোনের জন্য ল্যাপটপে জায়গা রাখার বিষয়টি এটিই প্রথম নয় বলে উল্লেখ করা হয়েছে প্রযুক্তি সাইটটির প্রতিবেদনে। এর আগেও এটি নিয়ে চেষ্টা করা হয়েছে, কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সফলতা আসেনি। এই প্রকল্পে আগের চেয়ে উচ্চ ক্ষমতাধর ফোন ব্যবহার করা হয়েছে আর বেশি সংখ্যক অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপকে বড় পর্দার জন্য বিশেষায়িত করা হয়েছে।

শুধু রেজার ফোন দিয়েই এখন এই ল্যাপটপ চালানো যাবে বলে দাবি প্রতিষ্ঠানটির। কিন্তু ল্যাপটপের নির্ধারিত জায়গাটিতে বসবে এমন অন্য স্মার্টফোনগুলো দিয়েও কাজ হওয়ার কথা বলে ভাষ্য সাইটটির।

এত বিবরণের পর বলতেই হচ্ছে, রেজারের অধিকাংশ প্রকল্পের মতো এটিও ঠিক কবে কেনা যাবে বা দাম কেমন হবে তা নিয়ে কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।