banggo

ক্রেতা-দর্শনার্থীদের পদচারণায় মেলা শুরুর পর প্রথম শুক্রবারে জমে উঠেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। মেলা প্রাঙ্গণে নামে মানুষের ঢল। সেই ঢল দেখা গেছে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নেও।

জুমার নামাজের পর প্যাভিলিয়নটিতে তিল ধরার জায়গা ছিল না। নানা বয়সীদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন। এখানে তরুণদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়।
মেলার প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশ করলেই নজর কাড়বে দৃষ্টিনন্দন প্যাভিলিয়নটি। আঙ্গুল উঁচু করে প্যাভিলিয়নটির সামনে দাঁড়িয়ে আছেন মহাপুরুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য। ভেতরে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২৬টি প্রদর্শনী রয়েছে। সেখানে ‘খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু’ হয়ে ওঠার নানা ঘটনার খণ্ড চিত্র উপস্থাপিত হয়েছে।

তেজগাঁও থেকে মেলায় দলবেঁধে ঘুরতে আসেন মো. ইমরান হোসেন। তিনি বলেন, মেলায় প্রবেশ করে প্রথমেই এসেছি বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নে। এখানে এসে জানলাম বঙ্গবন্ধুর আর এক নাম ছিল খোকা। শৈশব থেকে খোকা ছিলেন দুঃখী ও গরিব মানুষদরদি। এছাড়া জানতে পারলাম বঙ্গবন্ধুর খেলাপ্রীতি এবং সংগ্রামী জীবনের বিভিন্ন তথ্য। বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে অনেক কিছুই এখানে আসলে জানা যাবে। তবে আরো তথ্য থাকলে ভালো হতো।

মিরপুর থেকে আসা শিক্ষার্থী মো. রাসেল বলেন, বঙ্গবন্ধু জন্ম না নিলে আমরা আজ স্বাধীন দেশে বসবাস করতে পারতাম না। এ মানুষটার কারণেই আজ আমরা স্বাধীন দেশে বাস করতে পারছি। তাই বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নে ছুটে আসলাম তার সম্পর্কে কিছু জানান জন্য। বঙ্গবন্ধু শুধু আমাদের স্বাধীন দেশ উপহার দেননি, তার জীবনী থেকে আমাদের অনেক কিছুই শিখার আছে।

মেলায় ঘুরতে আসা সরকারি তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী মো. রায়হান বলেন, বঙ্গবন্ধু কোনো দল বা কোনো একক ব্যক্তির সম্পদ নয়। বঙ্গবন্ধু আমাদের সবার। বঙ্গবন্ধুকে রাজনীতির ঊর্ধ্বে রাখা উচিত।