জাতীয় দলের জন্য প্রস্তুত সালমান বাট

ওভালের ফিক্সিং কাণ্ডে জড়িয়ে পাঁচ বছর নিষেধাজ্ঞায় থাকার পর জাতীয় দলে ব্রাত্য হয়ে পড়েন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ও বাঁ হাতি ওপেনার সালমান বাট। একই অভিযোগে শাস্তি পান পেস বোলার মোহাম্মদ আমির ও মোহাম্মদ আসিফ।
আমির দলে ফিরলেও ব্র্যাত ছিলেন বাট ও আসিফ। ঘরোয়া ক্রিকেটে দুর্দান্ত খেলেও নির্বাচকমণ্ডলীকে কোনভাবেই সন্তুষ্ট করতে পারছিলেন না তারা। অবশেষে সেই সুযোগ আসছে। তবে কবে দলে ঢুকবেন এমন কিছুই স্পষ্ট নয়। ইতোমধ্যে ৩৩ বছর পার করছেন বাঁ হাতি এ ওপেনার। আদৌ কি সুযোগ পাবেন না কি এখানেই থেমে যেতে হবে তা সময়ই বলে দিবে।
ঘরোয়া ক্রিকেটে ফের ভালো করে আবারো পাকিস্তান জাতীয় দলের কড়া নাড়ছেন তিনি। ভবিষ্যতে তার দলে খেলার ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছেন স্বয়ং জাতীয় দলের নির্বাচক ইনজামাম-উল-হক।
সাবেক এ ওপেনার বলেন, আমি আশাবাদি জাতীয় দলের জার্সিটা আরেকবার গায়ে জড়াবো। দেশের জার্সিতে খেলার মতো টপ লেভেলে পারফর্ম করে যাচ্ছি। ঘরোয়া ক্রিকেটে আমার ধারাবাহিকতা বেশ ভালো। নিজের ফিটনেস ধরে রেখে পাকিস্তান জাতীয় দলের জন্য আমি প্রস্তুত হচ্ছি। দেশের জার্সিটা আমাকে এখনও টানে, আর সে জন্যই আমি পারফর্ম করে যাচ্ছি।’
গত জানুয়ারিতে ঘরোয়া লিগে ফেরার পর চুটিয়ে পারফর্ম করে যাচ্ছেন বাঁহাতি স্টাইলিশ ব্যাটসম্যান বাট। আর তার এই পারফরম্যান্সই তাকে জাতীয় দলে ফেরার ইঙ্গিত দিচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে ইনজামাম বলেছিলেন, সালমান বাট ঘরোয়া লিগে দুর্দান্ত করছে। ছয় বছর ক্রিকেটের সঙ্গে না থাকলেও তার ফিটনেস অসাধারণ। দীর্ঘদিন জাতীয় দলের বাইরে থাকার ফলে আমরা তাকে সরাসরি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নেব না। তাকে ভবিষ্যতের জন্যই বিবেচনা করা হচ্ছে।
জাতীয় দলের হয়ে ২০১০ সাল পর্যন্ত ৩৩টি টেস্ট, ৭৮টি ওয়ানডে আর ২৪টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা সালমান বাট আরও যোগ করেন, আমি নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টাই করে যাচ্ছি। গত সাত বছরে অনেক বন্ধুর পথ পাড়ি দিয়েছি। কঠোর পরিশ্রম করে নিজেকে প্রমাণ করে যাচ্ছি। ঘরোয়া ক্রিকেটের সাম্প্রতিক আসর গুলোতে ভালো করেছি। কিন্তু, তারপরও কেন জানি অজানা কারণে জাতীয় দলে ডাক পাচ্ছি না।