bb

দেশের রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয়ের প্রায় ২৫ শতাংশই আসে সৌদি আরব থেকে। কিন্তু সম্প্রতি বড় শ্রমবাজারের এ দেশটি থেকে রেমিট্যান্স আসা কমে গেছে। ফলে সৌদিকে পেছনে ফেলে প্রবাসী আয়ের আহরণে শীর্ষে ওঠে গেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ দেশভিত্তিক রেমিট্যান্স পর্যালোচনায় এ তথ্য জানা গেছে।
প্রতিবেদনে দেখা যায়, নভেম্বরে দেশে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে। আলোচিত মাসে দেশটি থেকে প্রবাসী আয় হয়েছে ২১ কোটি ২৭ লাখ ডলার। অন্যদিকে নভেম্বরে সৌদি আরব থেকে রেমিট্যান্স এসেছে ১৯ কোটি ৪৭ লাখ মার্কিন ডলার। সেই হিসেবে সৌদি আরবের তুলনায় আরব আমিরাতে রেমিট্যান্স বেড়েছে এক কোটি ৭৯ লাখ ডলার (প্রতি ডলার ৮০ টাকার হিসাবে যার পরিমাণ দাঁড়ায় ১৪৪ কোটি টাকা)।

এদিকে অক্টোবরের তুলনায়ও নভেম্বরে সৌদি থেকে রেমিট্যান্স এক কোটি ৫৫ লাখ ডলার কম এসেছে। আগের মাস অক্টোবরে যার পরিমাণ ছিল ২১ কোটি ৩ লাখ ডলার।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সৌদিতে বসবাসরত প্রবাসী ও তাদের ওপর নির্ভরশীল সদস্যদের ওপর নতুন চক্রবৃদ্ধি কর আরোপ করেছে দেশটির সরকার। অন্যদিকে জ্বালানি তেলের দরপতন হয়েছে। এসব কারণে প্রবাসীদের আয় কমে গেছে। ফলে সৌদি আরব থেকে রেমিট্যান্সও কমে গেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, রেমিট্যান্স পাঠানোর ক্ষেত্রে দীর্ঘদিন শীর্ষে থাকা সৌদি আরব এখন দ্বিতীয় অবস্থানে নেমে গেছে। সৌদি আরবের পরই তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। নভেম্বরে দেশটি থেকে রেমিট্যান্স এসেছে ১৭ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। এরপরই যুক্তরাজ্য থেকে এসেছে ৯ কোটি ৩০ লাখ ডলার, কুয়েত থেকে ৯ কোটি ডলার এবং মালয়েশিয়া থেকে পাঠানো হয়েছে ৮ কোটি ৯১ লাখ ডলার। তালিকায় এরপর রয়েছে ওমান, কাতার ও ইতালি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের নভেম্বরে প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স এসেছে ১২১ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। যা আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় ২৬ কোটি ডলার বা ২৭ দশমিক ৬৮ শতাংশ বেশি।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র শুভঙ্কর সাহা বলেন, সৌদি থেকে কমলেও সার্বিকভাবে দেশের রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে। ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স বাড়ানোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে বেশকিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তারই ইতিবাচক ফল পাওয়া যাচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে প্রবাসীদের জন্য সুযোগ-সুবিধাও বৃদ্ধি করা হয়েছে।

এদিকে বিদায়ী ২০১৬-১৭ অর্থবছরে প্রবাসীরা এক হাজার ২৭৬ কোটি ৯৪ লাখ ডলার সমপরিমাণ মূল্যের রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছে। যা এর আগের ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ছিল এক হাজার ৪৯২ কোটি ৬২ লাখ মার্কিন ডলার। সে হিসাবে গত অর্থবছরে রেমিট্যান্স কমেছে ২১৬ কোটি ১৭ কোটি ডলার বা ১৪ দশমিক ৪৭ শতাংশ। এর আগে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রেমিট্যান্স আসে এক হাজার ৫৩২ কোটি ডলার। ফলে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে রেমিট্যান্স কমেছিল ৩৯ কোটি ডলার।