মোমিন হত্যা দুই জনের মৃত্যুদণ্ড বহাল

কলেজছাত্র কামরুল ইসলাম মোমিন হত্যা মামলায় দুই আসামির ফাঁসি এবং ছয় আসামির যাবজ্জীবন দণ্ডের রায় বহাল রেখেছেন হাইকোর্ট।
ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের শুনানি নিয়ে বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ রায় ঘোষণা করেন।
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন সাখাওয়াত হোসেন জুয়েল ও তারেক ওরফে জিয়া।
যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্তরা হলেন হাবিবুর রহমান তাজ, জাফর আহমেদ, মনির হাওলাদার, ঠোঁট উঁচা বাবু, আসিফুল হক জনি ও শরিফ উদ্দিন। এ মামলায় প্রধান আসামি ওসি রফিক মারা যাওয়ায় মামলা থেকে তাঁকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।
আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ। আসামিদের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী তৌহিদুল ইসলাম।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৫ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকা কমার্স কলেজের ছাত্র ও জাসদ ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগর শাখার সহসাধারণ সম্পাদক মোমিনকে তাদের উত্তর ইব্রাহিপুর বাসার কাছে কলেজে যাবার পথে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। বাড়ির সীমানা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ওসি রফিক সন্ত্রাসীদের দিয়ে ওই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন অভিযোগ করে কাফরুল থানায় হত্যা মামলাটি করেন মোমিনের বাবা আবদুর রাজ্জাক (প্রয়াত)। মতিঝিল থানার তৎকালীন ওসি এ কে এম রফিকুল ইসলামসহ ২৬ জনকে মামলায় আসামি করা হয়।
ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪ এর বিচারক মো. রেজাউল ইসলাম ২০১১ সালের জুলাই মাসে মোমিন হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন। পরে এ মামলার ডেথ রেফারেন্সের (মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিতকরণ) প্রয়োজনীয় নথি হাইকোর্টে পাঠানো হয়। আপিল করেন আসামিপক্ষও।