saudi arab flood সৌদি আরব বন্যা

সৌদি আরবে প্রচণ্ড বৃষ্টির কারণে আকস্মিক বন্যায় অন্তত তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। খবর খালিজ টাইমসের।বুধবার মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যমটি জানায়, জেদ্দায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট  হয়ে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আর মক্কা প্রদেশেরে ভিন্ন দুটি এলাকায় আরো দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃষ্টিপাতের কারণে প্রধান শহরগুলোর রাস্তায় পানি নেমে এসেছে।
মঙ্গলবার সকাল থেকে জেদ্দার কিং আবদুল আজিজ বিশ্ববিদ্যালয় ৫৬.৮ মিলি মিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে।
সৌদি প্রেস এজেন্সি জানায়, বেসামরিক প্রতিরক্ষা বাহিনী মক্কা থেকে ১ হাজার ৪২৫, মদিনা থেকে ৫৪২, তাবুক থেকে ১৬ ও আল জাওফ থেকে ছয়টি ইমার্জেন্সি ফোন কল পেয়েছে।
বন্যা কবলিত কয়েকশ মানুষকে উদ্ধার করা হয়েছে। এদের মধ্যে মক্কায় ৪০০, মদিনায় ৫৪, তাবুকে ১৯ ও আল জওফে আট জন রয়েছে।
এদিকে জেদ্দার স্বাস্থ্য বিভাগ ২৯টি ইমার্জেন্সি ফোন কল পেয়েছে। কর্তৃপক্ষ থেকে জানানো হয়, এগুলোর মধ্যে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হবার আটটি কল ছিল।
আরও বৃষ্টিপাতের শঙ্কায় শিক্ষা বিভাগ ঘোষণা করে যে, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকবে।
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্যের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এগিয়ে আসার নির্দেশনা দিয়েছেন সৌদি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ সাউদ আর মোজেবম।
তিনি জানিয়েছেন, জেদ্দায় জলাবদ্ধতার পেছনে চলমান প্রকল্পগুলোর কোন দুর্নীতি ধরা পড়লে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিচারের আওয়তায় আনা হবে।
এদিকে আবহাওয়া এবং পরিবেশ সুরক্ষা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, জেদ্দা, ইউসফান, ধাবন, বাহরা, খুলিস, মক্কা ও তৈয়ফে বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
অধিদপ্তরটি জানায়, দমকা হাওয়া থাকার সম্ভাবনার পাশাপাশি পরিস্থিতির অবনতি হবার আশঙ্কা রয়েছে।
সৌদি আরবে ২০০৯ সালের বন্যায় ১২৪ জন মারা যায়। এছাড়া ২০১১ সালে প্রায় ১০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।