7 march

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণধারণ, সংরক্ষণ ও প্রচারের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের সম্মাননা ও সংবর্ধনা দেবে তথ্য মন্ত্রণালয়।

বঙ্গবন্ধুর ভাষণকে বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে ইউনেস্কোর স্বীকৃতি উপলক্ষে তথ্য মন্ত্রণালয়ের নেয়া প্রস্তাবিত কর্মসূচি থেকে এ কথা জানা গেছে। সোমবার তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর সভাপতিত্বে সচিবালয়ে এ সংক্রান্ত একটি সভা হয়।
তথ্য মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সভায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক এ ভাষণটির তাৎপর্য দেশে-বিদেশে তুলে ধরার জন্য নানামুখী কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা হয়। প্রস্তাবিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণধারণ, সংরক্ষণ ও প্রচারের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের সম্মাননা ও সংবর্ধনা দেয়া। ইউনেস্কো স্বীকৃতির বিষয়ে উদ্যোক্তা ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ‘বজ্রকণ্ঠ’ অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্তদের সাক্ষাৎকারধর্মী অনুষ্ঠান প্রচার। এর পাশাপাশি বেতার ও টেলিভিশনে আলোচনাসভাসহ সৃষ্টিশীল ও প্রামাণ্য অনুষ্ঠান সম্প্রচারের বিষয়েও আলোচনা হয় সভায়।

রাষ্ট্রীয়ভাবে ৭ মার্চের ভাষণকে ত্রিমাত্রিক চলচ্চিত্রে রূপদান, পুস্তক ও পোস্টার প্রকাশের জন্য চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদফতর, জেলা তথ্য অফিসগুলোর মাধ্যমে ভাষণের ওপর জেলাভিত্তিক আলোচনা ও শিশু-কিশোরদের কুইজ প্রতিযোগিতা আয়োজনের বিষয়ে সভায় সিদ্ধান্ত হয়।

এছাড়া এ বিষয়ে চলচ্চিত্র প্রদর্শনের জন্য গণযোগাযোগ অধিদফতর এবং নিবন্ধ, স্মৃতিচারণমূলক লেখা, কবিতা ও গল্প প্রকাশের জন্য তথ্য অধিদফতর ও বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার অগ্রণী ভূমিকা গ্রহণের বিষয়েও সভায় সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ, প্রধান তথ্য অফিসার কামরুন নাহার, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদ, তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মো. মনজুরুর রহমান, গণযোগাযোগ অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. জাকির হোসেন ও চলচ্চিত্র প্রকাশনা অধিদফতরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইসতাক হোসেন, বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক নারায়ণ চন্দ্র শীলসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।