nayok

আপনি খেয়াল করেছেন কি? আজকাল ঢনার্ঢ্য ব্যবসায়ী অথবা ক্ষমতাশালী অর্থবিত্ত সম্পন্ন লোকের পার্টিতে তারকাদের ভিড় জমে। পার্টি বলতে এটা কোনো সিনেমা বা নাটক সংশ্লিষ্ট নয়। এমনকি মিডিয়ার কোনো কিছুর সঙ্গেই কোনোভাবে যুক্ত নয়। তারপরও সেসব অনুষ্ঠানে তারকারা হাজির।এর খবর সবসময় সংবাদমাধ্যমে প্রচারও হয় না। কারণ এর নাম তো ‘প্রাইভেট পার্টি’। এসব পার্টি সাধারণত সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে।তাই হয়তো তাঁরা খোঁজ খবর জানেও না। কিন্তু উচ্চবিত্তদের কিন্তু ঠিকই জানা আছে। কেমন হয় এসব পার্টি!

শোনা যায়, নিমন্ত্রণ ছিল অমুক ব্যাক্তির অনুষ্ঠানে। তার সঙ্গে যে অমুক তারকার খুব ভালো সম্পর্ক আছে এমন প্রমাণও নেই। স্রেফ দাওয়াতেই নাকি একজন ব্যস্ত অভিনয়শিল্পী অথবা কণ্ঠশিল্পী মূলকথা সেলিব্রেটিরা সেখানে উপস্থিত হয়!সিনেমার কথা বাদই দিলাম। যারা টিভি নাটকে নিয়মিত অভিনয় করেন, তাদের পারিশ্রমিকও প্রতিদিন হিসেবে কমপক্ষে আট থেকে দশ হাজার।সেখানে তারা শুধুমাত্র আপ্যায়ন মেটাতে সময় ব্যয় করেন! কৌতুহল তো হওয়ারই কথা।

খোঁজ নিলে উঠে আসে ভিন্নচিত্র। পেশাদায়িত্বের খাতিরেই তাদের অনুষ্ঠানগুলোতে উপস্থিত হওয়া। কেমন পেশা? এক একটা অনুষ্ঠানে গেলে তাঁরা মোটা অঙ্কের পারিশ্রমিক পেয়ে থাকেন। এরকম মোটা অঙ্ক পেয়ে সিনিয়র থেকে জুনিয়র, সবাই অংশ নিয়ে থাকেন। যেন মিডিয়ার এটা নতুন কোন পেশা। অভিনয় গান গাওয়া কিংবা মডেলিংয়েল পাশাপাশি এটাও বেশ জমেছে এক বিশেষ শ্রেণিতে। এই উপরি উপার্জনকে অনেকে খারাপ চোখেও দেখছেন না। জানা যায়, উচ্চবিত্ত কারও ছেলে বা মেয়ের জন্মদিনে গিয়েও আজকাল সেলিব্রেটিরা চা্র্জ করে থাকেন। খবর হয় অমুক ব্যবসায়ীর পার্টিতে তমুক তারকা উপস্থিত হয়েছেন। পার্টির মর্যাদা বেড়ে যায়।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বলেন, ‘আমি মুসা বিন শমসেরের জন্মদিন পার্টিতে গিয়েছিলাম। ওনার মত ব্যক্তির পার্টিতে গিয়ে নিজেকে গর্বিত মনে করি। আসলে এই আমন্ত্রণ জানানো, কাকে জানানো হবে। এর জন্য একদল মধ্যস্থতাকারী থাকে। যাদের সঙ্গে তারকাদেরও একটি সম্পর্ক থাকে। বিপরীতে ধনাঢ্য ব্যাক্তিদের সঙ্গেও। ওরাই সব ম্যানেজ করে দেয়। আমরা শোভা হিসাবে যাই’

না কিন্তু এখানে সমাপ্তি টানা যাচ্ছে না। এসব অনুষ্ঠান চলে হরদম মাদকসেবন। এটাও এক শ্রেণির সংস্কৃতি হয়ে যাচ্ছে। এসব হিসেব কষে সংস্কৃতি কোথায় যাচ্ছে? যেথায় যাচ্ছে সেটা কি সঠিক পথ? পথ হারাচ্ছে না তো? এরকম আরও অনেক প্রশ্ন এসে যায়। আর এর উত্তরে কী মেলে? লোভ তো সামলাতে হবে। নিজের জায়গাটা বুঝতে হবে। অর্থপ্রতিপত্তির চেয়ে মানুষের মনে জায়গা করতে নিজের প্রতিভা দেখাতে হবে। ভিন্ন কোনো পথে গিয়ে নিজেকে বড় করার কোনো উপায় নেই।