fery ghat

মুন্সীগঞ্জের মধ্যদিয়ে বয়ে যাওয়া ঢাকা-চট্রগ্রাম,ঢাকা-মাওয়া মহাসড়ক ও শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটের শিমুলিয়া ঘাট নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা রয়েছে। এসব এলাকায় ব্যাপক পুলিশ, আনসার ও র‌্যাব মোতয়েন করা হয়েছে।

ভিন্ন পোষাকে রয়েছে মহিলা ডিবি পুলিশও।
দেশের দক্ষিণবঙ্গের ২১ জেলার যাত্রীদের অন্যতম প্রবেশদ্বার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে আসন্ন কোরবানি ঈদে নারীর টানে বাাড়ি ফেরা মানুষের চাপ বেড়েছে। বুধবার সকাল থেকেই যাত্রীদের চাপ বাড়ার সাথে সাথে যানবাহনের চাপও বৃদ্ধি পেয়েছে। শিমুলিয়াঘাটে যাত্রীবাহী বাস ও প্রাইভেট গাড়ির চাপ বেড়েছে। এতে ঘাট এলাকায সকালের দিকে সহাস্রাধিক গাড়ি পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। যাত্রী ও চালকদের কিছুটা দুর্ভোগ থাকলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী রয়েছে তৎপর।

এ সব এলাকায় রয়েছে ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের সমন্বয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত। যাত্রীদের নির্বিঘ্নে বাড়ি ফিরতে পুরো ঘাট জুড়ে মোতায়ন করা হয়েছে আইন শৃঙ্গলা বাহিনীর ছয়শ’ সদস্য। ইতিমধ্যে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার মুহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম এক ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে প্রতিটি সদস্যকে গুরুত্বের সাথে বিশেষ করে এই দায়িত্বকে ইবাদতের মতো গুরুত্ব দিয়ে পালন করার নির্দেশ প্রদান করেন।

শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক গিয়াসউদ্দিন পাটোয়ারী জানান, ছোট বড় মিলিয়ে মোট ১৯টি ফেরি চলছে এ নৌরুটে। ঘাট এলাকায় ভোর থেকে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বেড়েছে। তবে এ চাপ সামলাতে সমস্যা হবেনা। দুপুর নাগাদ এটা শেষ হয়ে যাবে। এ ছাড়া আজ থেকে সকল প্রকার পন্যবাহী ও পশুবাহী ট্রাক চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। এ দিকে লঞ্চ ও স্পীড বোর্ট দিয়ে পদ্মা পাড়ি দেয়া যাত্রীদদের সংখ্যাও আগের চেয়ে কিছুটা বেড়েছে।