poly

রাজশাহী মহানগরীতে কোরবানির বর্জ্য ফেলতে এবার বাড়ি বাড়ি পলিব্যাগ সরবরাহ করবে সিটি করপোরেশন। রবিবার সন্ধ্যায় নগর ভবনের অ্যানেক্স সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। এ সময় মেয়র সবুজ রঙের একটি নমুনা পলিব্যাগ সাংবাদিকদেরও দেখান।
তিনি বলেন, এই পলিব্যাগটিই ঈদের আগে নগরীর প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে বিনামূল্যে পৌঁছে দেবে সিটি করপোরেশন। ব্যাগটিতে ৩০ কেজি বর্জ্য ভরা যাবে।

মেয়র জানান, কোরবানির পশু জবাইয়ের পর বাড়িতে মাংস থেকে যেসব বর্জ্য হয়, সেগুলোই এই ব্যাগে ভরে রাখবেন নগরবাসী। পরে সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নকর্মীরা প্রতিটি এলাকায় গাড়ি নিয়ে যাবেন। তারা বাঁশি বাজালে বাড়ির লোকজন এই ব্যাগটি পরিচ্ছন্নকর্মীদের দেবেন। পরবর্তীতে সিটি করপোরেশন যথাযথ উপায়ে ব্যাগসহ এই বর্জ্য নিঃশ্বেষ করবে।
সংবাদ সম্মেলনে মেয়র জানান, নগরীতে এবার ২১০টি স্থানে পশু জবাই করা হবে। নির্ধারিত স্থানে ঈমামসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দেবে সিটি করপোরেশন। সেসব স্থান থেকে ঈদের রাতেই বর্জ্য অপসারণের লক্ষ্য থাকবে। বর্জ্য সরিয়ে নেয়ার পর পশু জবাইয়ের স্থানে ব্লিচিং পাউডার এবং কেরোসিন ঢেলে দুর্গন্ধ ছড়ানোও বন্ধ করা হবে।

বুলবুল বলেন, মহানগরীতে সাধারণত প্রতিদিন ৪০০ টন বর্জ্য হয়। কোরবানির দিনে অতিরিক্ত আরও ২০০ টন বর্জ্য হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই বিপুল পরিমাণ বর্জ্য অপসারণে রাসিকের পরিচ্ছন্নতা বিভাগের সব কর্মীর ঈদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। দ্রুত বর্জ্য অপসারণে প্রায় ৪০০ কর্মী একযোগে কাজ করবেন। ছুটি বঞ্চিত হয়ে কাজ করায় তাদের বখশিস দেয়া হবে। কয়েকদিন পর ঈদের ছুটিও পাবেন কর্মীরা।

এদিকে কোরবানির পশুর বর্জ্য সুষ্ঠুভাবে অপসারণের জন্য ঈদের দিন নগর ভবনে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা স্থায়ী কমিটির নেতৃত্বে একটি কন্ট্রোল রুমও খোলা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে মেয়র জানান, ঈদের দিন বিকাল ৪টা থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত নগরবাসী এই কন্ট্রোল রুমের ০১৯১৯০৯৮৮৯৮, ০১৭১৩০৯৮৯৫৬ এবং ০১৭১৬৪০৮০৭১ নম্বরের মোবাইলে যোগাযোগ করে নিজ নিজ এলাকার বর্জ্য অপসারণ পরিস্থিতি জানাতে পারবেন। কোথাও বর্জ্য অপসারণ না হওয়ার খবর এলে দ্রুত ব্যবস্থা নেবে এই কন্ট্রোল রুম।

মেয়র বুলবুল বলেন, পরিবেশ দূষণ রোধে জাতিসংঘের সূচকে এক নম্বর মহানগরী এই রাজশাহীকে আরও পরিচ্ছন্ন ও পরিবেশবান্ধব নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সব ধরনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এ জন্যই কোরবানি ঈদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নতুনত্ব আনা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ আনোয়ারুল আজম আযব, প্যানেল মেয়র-৩ নুরুন্নাহার বেগম, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. মামুন ও কাউন্সিলর রবিউল আলম মিলুসহ অন্যান্য কাউন্সিলর এবং নারী কাউন্সিলররা উপস্থিত ছিলেন।