rezvi

সাংবাদিকতায় ‘মহাত্মা গান্ধী স্বর্ণ স্মারক-২০১৬’ পেলেন দৈনিক মানবকণ্ঠের সিনিয়র সাব-এডিটর রেজাউর রহমান রিজভী। শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর সুপ্রিমকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে বাংলাদেশ-ভারত মানবাধিকার মৈত্রী সংস্থা আয়োজিত ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকা: চেতনায় মহাত্মা গান্ধী’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা শেষে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। রিজভীর হাতে সম্মাননা তুলে দেন জাতীয় সংসদ সদস্য শিরীন আখতার।

নজরুল ইসলাম তামিজীর সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট নাভানা আক্তার এমপি, ব্যারিস্টার আফতাব উদ্দিন, প্রফেসর নূরুল আমিন চৌধুরী, রবীন্দ্র গবেষক অধ্যাপক ড. জমির হোসেন, অ্যাডভোকেট মাসুম মৃধা, এমএ মতিনসহ আরো অনেকে।

প্রসঙ্গত, রিজভী দৈনিক মানবকণ্ঠের বিনোদন ও ডাক্তারবাড়ি বিভাগের বিভাগীয় সম্পাদক হিসেবে কাজ করছেন। প্রায় দেড় যুগ ধরে রিজভী সাংবাদিকতায় যুক্ত। মানবকণ্ঠের আগে তিনি দৈনিক জনকণ্ঠ, যায়যায়দিন, সমকাল ও আজকের কাগজে কাজ করেছেন। সাংবাদিকতায় অবদান রাখায় এর আগে তিনি রোদসী অ্যাওয়ার্ড (২০০৮), লালমোহন ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড (২০০৮), ওয়ার্মভ্যালি অ্যাওয়ার্ড (২০১১), মাদার তেরেসা গোল্ড অ্যাওয়ার্ড (২০১২), স্টার অ্যাওয়ার্ড (২০১৭) সহ বেশ কিছু সম্মাননা পেয়েছেন।

তিনি একাধারে অভিনেতা, উপস্থাপক, লেখক, গীতিকার ও নাট্যকার। এসব কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ পেয়েছেন হিউম্যান রাইটস অ্যাওয়ার্ড, বাংলার সঙ্গীত স্বাধীনতা স্বারক, বাংলার সঙ্গীত পারফরমেন্স অ্যাওয়ার্ডসহ বেশ কিছু সম্মাননা।
এছাড়া রিজভী বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সাংবাদিক সংগঠনের সঙ্গেও যুক্ত রয়েছেন। এগুলোর মধ্যে অন্যতম- সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক (বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি), সাংগঠনিক সম্পাদক (ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল), প্রকাশনা সম্পাদক (টেলিভিশন নাট্যকার সংঘ), সহ-সভাপতি (শিল্পী ঐক্য জোট) এবং সদস্য (অভিনয় শিল্পী সংঘ ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন)।
ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করেন রিজভী। তিনি স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগ থেকে। কুষ্টিয়ার সন্তান রিজভী ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ও এক কন্যা সন্তানের জনক।